বর্ণাঢ্য আয়োজনে রিচ্ বিজনেস সিস্টেম লিমিটেডের ১২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন

নিজস্ব প্রতিবেদক

বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানমালার মধ্য দিয়ে মঙ্গলবার রাজধানীর গুলিস্থানস্থ মহানগর নাট্যমঞ্চের কাজী বশির মিলনায়তনে উদযাপিত হল রিচ্ বিজনেস সিস্টেম লিমিটেডেটে ১২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। ম্যানেজমেন্ট ও ডায়মন্ডবৃন্দের উপস্থিতিতে দিনব্যাপী এ অনুষ্ঠানমালার মধ্যে ছিল উদ্বোধন, সমবেত কণ্ঠে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন, কেক কাটা, আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এছাড়াও প্রাণ আর.এফ. এল গ্রুপের সাথে রিচ্ বিজনেস সিস্টেম লিমিটেডের মধ্যে সাক্ষরিত হয় ব্যবসায়িক চুক্তি। এ সময় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রিচ্ বিজনেস সিস্টেম লিমিটেডের চেয়ারম্যান মো. সাঈদুজ্জামান তুষার, ম্যানেজিং ডিরেক্টর হোসাইন মো. হেলাল, ডিরেক্টর মার্কেটিং এন্ড প্ল্যানিং) মো. লোকমান উদ্দীন, এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর (মার্কেটিং) জাহঙ্গীর আলম, এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর (এডমিন) শামীম চৌধুরী, ডায়মন্ড এক্সিকিউটিভ মাজহারুল ইসলাম রুবেল, ডায়মন্ড এক্সিকিউটিভ মো. আলমগীর, ডায়মন্ড এক্সিকিউটিভ এ.এন.এম মাছুম।
এ সময় বক্তারা বলেন, রিচ্ বিজনেস সিস্টেম লিমিটেডেট নেটওয়ার্ক মার্কেটিং ব্যবসায় বাংলদেশে নিয়ে এসেছে সম্ভাবনার এক নতুন দিগন্ত। রিচ্ বিজনেস সিস্টেমের বর্তমান গ্রাহক সংখ্যা ৪ লাখ। ব্রাঞ্চ ৭০ এর ওপরে। রিচবাজার ৮০ টিরও অধিক। খুব শিগগিরই ২১০ জনকে শিক্ষাবৃত্তি দেবে রিচ্ বিজনেস সিস্টেম। ২০১৬ সালের মধ্যে আমরা নিজস্ব ভবনে যাবো।
বক্তারা আরো বলেন, উন্নত বিশ্ব যেখানে আধুনিক তথ্য প্রযুক্তির ছোঁয়ায় গতিশীল, আমরা  সেখানে এখনও সেকেলে ধ্যান-ধারণায় হাবুডুবু খাচ্ছি। ১৯৪০ সালে আবিস্কৃত মাল্টিলেভেল মার্কেটিং বা এমএলএম ব্যবসা আমাদের দেশে ১৯৯৯ সালে এলেও জনসাধারণের কাছে তা এখনও সুপরিচিত নয়। আমরা জনসাধারণকে এ ব্যাপারে সচেতন করতে পেরেছি। আমরা ডিরেক্টর সার্ভিস ও এডুকেশন স্কলারশীপ চালু করতে যাচ্ছি।
দুপুর সাড়ে তিনটায় কেক কেটে রিচ্ বিজনেস সিস্টেম লিমিডেটের ১২তম বর্ষ উদযাপন করা হয়। এ সময় বিশেষ বক্তব্য রোখেন কোম্পানির ডিরেক্টর (মার্কেটিং এন্ড প্ল্যানিং) মো. লোকমান উদ্দিন, ম্যানেজিং ডিরেক্টর হোসাইন মো. হেলাল, সমাপনী বক্তব্য রাখেন কোম্পানির চেয়ারম্যান মো. সাইদুজ্জামন তুষার।
শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন রিচ বিজনেস সিস্টেম লিমিটেডের ডিরেক্টর মো. লোকমান উদ্দীন। বক্তব্য রাখেন রিচ বাজারে সবচেয়ে বেশি বিনিয়োগকারী স্টকিস্ট আলী হায়দার শামী, বিশেষ প্রেজেন্টশন করেন এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর (মার্কেটিং) মো. জাহাঙ্গী আলম। অনুভূতি ব্যক্ত করেন সবচেয়ে বেশি সময় ধরে ব্রাঞ্চ ম্যানেজার কচুয়ার মো. জাহাঙ্গীর আলম, হাজীগঞ্জের মাছুম, গাজীপুরের মো. মেহেদী হাসান, ৪ সেন্টারের এম.এইচ.প্রিন্স মাহমুদ এবং একই স্টেটম্যান্টে সর্বাধিক সেন্টারের ৭,৫০০ টাক  উপার্জনকারী লিডার আজিজুল হক। কোরআন তেলোয়াত করেন রফিকুল্লাহ সাদী, মোনাজাত করেন মাওলানা মো. নুরুল ইসলাম।