রাজপথের অজানা কাহিনি

ভারতের রাজধানী দিল্লীর ফুটপাত নিয়ে নানা সমস্যা৷ গাড়ি পার্কিং, দোকানপাটে ভরা থাকে শহরের ফুটপাথ৷ তার মধ্যে আবার রয়েছে অসংখ্য পথচলতি মানুষ৷ তাদের ভিড়ে নিজেকে সামলে পথ চলতে অনেক অসুবিধা হয়৷ সেই অসুবিধাকে এড়িয়ে চলতে অভস্ত্য হয়ে পড়ে শহরের মানুষ৷ বাকি দেশের রাজধানীগুলিরও কি একই অবস্থা? সেটা একবার দেখে নেওয়া যাক৷

ব্যাংকক
থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককের ফুটপাতে হাঁটার সময় আপনাকে প্রায়ই হাত-পা নাড়াতে হবে। কারণ, এই শহরে স্কুটার এবং বাইকের সংখ্যা প্রচুর এবং তারা বিভিন্ন সময় বিভিন্ন জায়গা দিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। আপনি যদি হাত-পা নাড়িয়ে নিজের উপস্থিতি জানান না দেন, তাহলে হয়তো আপনার গায়েই উঠে যাবে মোটরসাইকেল। রাস্তা পার হওয়ার সময়ও হাত নেড়ে ড্রাইভারদের আস্তে চালানোর ইশারা দিতে হবে অনবরত, এতে নিজেই নিরাপদে থাকবেন।

রোম
ইতালির রাজধানী রোম। এই শহরের ফুটপাতে ধীরস্থিরভাবে হেঁটে যাওয়াই মঙ্গল। হাঁটার সময় চোখ কান খোলা রাখতে হবে কারণ কোনও গাড়ির সামনে গিয়ে পড়লে ড্রাইভার ব্রেক কষবেন ঠিকই কিন্তু হর্ন বাজিয়ে আপনার কানের বারোটা বাজিয়ে দেবেন। তাই সেটা এড়িয়ে চলাই শ্রেয়৷ চেষ্টা করুন এদের সামনে না পড়ার। অপেক্ষা করুন এবং সময় নিয়ে  ধীরে সুস্থে রাস্তা পারাপার করুন।

নিউইয়র্ক
নিউইয়র্কারদের নাকি নানা বদভ্যাস রয়েছে। রাস্তায় চলার সময় সেগুলো আরও প্রকট হয়। রাস্তার বাতি না দেখেই ব্যস্ত রাস্তা পার হতে অভ্যস্ত তারা। ট্র্যাফিক বাতির চেয়ে বরং ড্রাইভারদের চোখের দিকে তাকিয়ে রাস্তা পার হওয়াই শ্রেয়। তাতে গাড়ি থেমে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে কারণ, নিউইয়র্কের ড্রাইভাররাও এভাবে গাড়ি চালিয়ে অভ্যস্ত।

ভিয়েতনাম
ভিয়েতনামের রাস্তায় হাঁটতে গেলে আপনার মনে হবে আশপাশের সব বাইকাররা যেন আপনার সঙ্গে পাল্লা দিতেই রাস্তায় নেমেছে। তাই তাদের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলুন। হঠাৎ করে থেমে যাবেন না, তাহলে চাপা পরার ঝুঁকি আছে। বাইকারদের রাস্তা ছেড়ে দেওয়াটাই নিজের জন্য মঙ্গলজনক।

ব্রিটেন
ব্রিটেনের মানুষজন ট্র্যাফিক সিগন্যাল মেনে চলেন ঠিকমতো। তারপরও শুধু ট্রাফিক সিগন্যালের ওপরেই ভরসা করে রাস্তায় চলবেন না। কারণ ব্রিটেনের ফুটপাতে সাইক্লিস্টদের সংখ্যা অনেক বেশি। ওয়ান ওয়ে রাস্তা পার হওয়ার সময়ও রাস্তার দুই পাশেই চোখ বুলিয়ে নিন। অনাকাঙ্ক্ষিত দুর্ঘটনার হাত থেকে রক্ষা পাবেন।

জার্মানি
জার্মানির লোকজনের রাস্তার মাঝখান দিয়ে হাঁটার বদভ্যাস নেই। তাঁরা তাঁদের জন্য নির্ধারিত ফুটপাত ধরেই হাঁটেন নিয়ম মত। তাঁদের রাস্তায় অযাচিত কেউ বাইক বা সাইকেল নিয়ে উঠে পড়ে না। ফুটপাত ছেড়ে হাঁটলে পুলিশ নাকি জরিমানা করতে একটুও দেরি করে না। তাই সাধারণত নিয়মের হেরফের হয় না জার্মানিতে।