কমছে এভারেস্টের হিমবাহের আয়তন

ক্রমশ কমছে হিন্দুকুশ-হিমালয় অঞ্চলের হিমবাহগুলির আয়তন। মাউন্ট এভারেস্ট বা তিব্বতী ভাষায় মাউন্ট চোমোলাংমার তাপমাত্রা গত অর্ধশতকে উল্লেখযোগ্যভাবে বেড়েছে। এর জন্য দায়ী কি উষ্ণায়ণ? ভাবছেন চিনের ভূ-বিজ্ঞানীরা।

মাউন্ট এভারেস্টের হিমবাহগুলির আয়তন গত চার দশকে ২৮ শতাংশ কমেছে। এর কারণ হিসেবে চিনের বিশেষজ্ঞরা মূলত দায়ী করছেন জলবায়ুগত পরিবর্তনকে।

১৯৭০ সালের চাইনিজ অ্যাকাডেমি অফ সায়েন্সেস, হুনান ইউনিভার্সিটি অফ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি এবং মাউন্ট চোমোলাংমা স্নো লেপার্ড কনজারভেশন সেন্টার-এর যৌথ প্রতিবেদনের সঙ্গে তুলনা করে দেখা গিয়েছে, মাউন্ট এভারেস্টের নেপালে অবস্থিত দক্ষিণ ধাপের আয়তন ১৯৮০-দশকের পর থেকে ২৬ শতাংশ কমে গিয়েছে।

সাম্প্রতিক প্রতিবেদন জানাচ্ছে, মাউন্ট এভারেস্ট বা তিব্বতী ভাষায় মাউন্ট চোমোলাংমার তাপমাত্রা গত অর্ধশতকে উল্লেখযোগ্যভাবে বেড়েছে। ফলে সংশ্লিষ্ট অঞ্চলে হিমবাহের গলনের ফলে সৃষ্ট হ্রদের আয়তনও বৃদ্ধি পেয়েছে। এ বছর মে মাসে আন্তর্জাতিক স্তরের এক গবেষকদল তাঁদের প্রতিবেদনে জানিয়েছেন, হিন্দুকুশ-হিমালয় অঞ্চলের ৫,৫০০টি হিমবাহ বিপজ্জনক অবস্থায় রয়েছে। ২১০০ সালের মধ্যে এদের আয়তন ৭০ থেকে ৯৯ শতাংশ হ্রাস পাবে। এই বিপর্যয়ের ফল দাঁড়াবে ভয়াবহ। এর ফলে বিধ্বস্ত হয়ে পড়তে পারে এই সব হিমবাহ থেকে জাত নদ-নদীগুলির অববাহিকার কৃষি ও জলবিদ্যুতের উৎস।