শুভ জন্মদিন হরলাল রায় সাগর ও জাহাঙ্গীর কিরণ

দৈনিক মানবকণ্ঠের নিজস্ব প্রতিবেদক হরলাল রায় সাগর ও জাহাঙ্গীর কিরণের জন্মদিন ২০ ডিসেম্বর। শুভ জন্মদিন সাগর ও কিরণ।

হরলাল রায় সাগর : ১৯৭৬ সালের এই দিনে পটুয়াখালী জেলা সদরের ফুলতলা গ্রামে হরলাল রায় সাগর জন্মগ্রহণ করেন। বাবা দিতেন্দ্র নাথ রায় ও মা প্রিয়বালা রানীর ৮ সন্তানের মধ্যে তিনি ষষ্ঠ।

সাগর ১৯৯২ সালে তুষখালী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মানবিক বিভাগ থেকে এসএসসি, ১৯৯৫ সালে পটুয়াখালী সরকারি কলেজের মানবিক বিভাগ থেকে এইচএসসি ও একই কলেজ থেকে ১৯৯৯ সালে বিএ সম্পন্ন করেন।

হরলাল রায় সাগর ১৯৯৪ সালের নভেম্বরে দৈনিক আজকের দর্পণে পটুয়াখালী প্রতিনিধি হিসেবে সাংবাদিকতা শুরু করেন। একই সঙ্গে তিনি সাপ্তাহিক অনুসন্ধান বার্তায় পটুয়াখালী প্রতিনিধি হিসেবেও কাজ করেন। এর পর কাজের ধারাবাহিকতায় ১৯৯৬ সালে স্থানীয় দৈনিক গণদাবিতে নিজস্ব প্রতিবেদক, ১৯৯৮ সালে দৈনিক মানবজমিনে পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জ প্রতিনিধি, একই সময়ে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল এটিএন বাংলার পটুয়াখালী প্রতিনিধি ও দৈনিক সাথীতে বার্তা সম্পাদক, ২০০০ সালে দৈনিক মাতৃভূমিতে পটুয়াখালী প্রতিনিধি, ২০০৩ সালের নভেম্বরে দৈনিক জনতায় নিজস্ব প্রতিবেদক, ২০০৮ সালের জানুয়ারিতে দৈনিক অপরাধ কণ্ঠের নিজস্ব প্রতিবেদক, একই বছরের আগস্টে দৈনিক বাংলাদেশ সময়ে নিজস্ব প্রতিবেদক, একই সময়ে সাপ্তাহিক প্রিয় কাগজে তিনি নির্বাহী সম্পাদক এবং ২০১২ সালের ১ এপ্রিল দৈনিক মানবকণ্ঠে নিজস্ব প্রতিবেদক হিসেবে যোগ দেন।

হরলাল রায় সাগর ২০০৪ সালের ২৪ জুন অর্পণা রানী অপুর সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। এই দম্পতির অর্পিতা রায় মায়াবী ও স্নিগ্ধ রায় নামে দুই সন্তান রয়েছে।

সাগর জানান, তার প্রিয় ফুল গোলাপ। খেতে ভালোবাসেন ভাত ও সবজি। আর অবসর সময়ে এই সাংবাদিক আড্ডা দিতে ও পরিবারকে সময় দিতে পছন্দ করেন।

সাগর সাংবাদিকতায় নেতৃত্ব বিকাশের জন্য চলতি বছর ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির কার্যনির্বাহী সদস্যপদে নির্বাচন করে বিজয়ী হন এবং এ পদে থেকে বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়া পটুয়াখালী জার্নালিস্ট ফোরাম, ঢাকার তিনি যুগ্ম সম্পাদক।

জন্মদিনের বিশেষ আয়োজন সম্পর্কে সাগর বলেন, ‌’অফিসের কাজের বাইরে থাকতে হয়। তাই জন্মদিনের কোনো বিশেষ আয়োজন করার সুযোগ হয় না।’

জাহাঙ্গীর হোসেন কিরণ : ১৯৭৬ সালের এই দিনে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার মহিনন্দ ইউনিয়নের চংশোলাকিয়া গ্রামে জাহাঙ্গীর হোসেন কিরণ জন্মগ্রহণ করেন। তার ডাকনাম জাহাঙ্গীর কিরণ। বাবা মো. শামসউদ্দীন ও মা মোছা. জুবায়দা খানমের ৭ সন্তানের মধ্যে তিনি বড়। তার বাবা একজন অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক।

জাহাঙ্গীর কিরণ ১৯৯২ সালে কিশোরগঞ্জের আজিম উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের মানবিক বিভাগ থেকে এসএসসি, ১৯৯৪ সালে ওয়ালী নেওয়াজ খান কলেজের বাণিজ্য বিভাগ থেকে এইচএসসি ও পরবর্তী সময়ে উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএসএস সম্পন্ন করেন।

জাহাঙ্গীর কিরণ ২০০২ সালে কিশোরগঞ্জের স্থানীয় দৈনিক শতাব্দীর কণ্ঠে নিজস্ব প্রতিবেদক হিসেবে যোগদানের মধ্য দিয়ে সাংবাদিকতা শুরু করেন। এর পর কাজের ধারাবাহিকতায় স্থানীয় সাপ্তাহিক আলোর মেলায় বার্তা সম্পাদক, একই সঙ্গে দৈনিক ভোরের ডাকে কিশোরগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি, ২০০৬ সালে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল সিএসবি নিউজে ও দৈনিক ডেসটিনির কিশোরগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করেন।

২০০৮ সালে ঢাকায় চলে আসেন তিনি। ওই বছরের শুরুতেই দৈনিক জনতায় নিজস্ব প্রতিবেদক হিসেবে যোগ দেন। পরবর্তী সময়ে অনলাইন নিউজ পোর্টাল ওএমএস নিউজে নিজস্ব প্রতিবেদক, দৈনিক সংবাদে নিজস্ব প্রতিবেদক ও সর্বশেষ দৈনিক মানবকণ্ঠে নিজস্ব প্রতিবেদক হিসেবে যোগ দেন।

জাহাঙ্গীর কিরণ শৈশব থেকেই লেখালেখি করতেন। ১৯৯৩ সালে কলেজ ম্যাগাজিনে তার লেখা কবিতা প্রথম প্রকাশ হয়। এর পর অসংখ্য কবিতা, গল্প, লিমেরিক ও নিবন্ধ স্থানীয় পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। ‘ফুটন্ত গোলাপ’ নামে একটি কাব্যগ্রন্থও প্রকাশিত হয়েছে।

কিরণ জানান, তার প্রিয় রং সবুজ ও ফুল গোলাপ। খেতে ভালোবাসেন গরুর মাংস ও রুটি। আর অবসর সময়ে এই সাংবাদিক গান শুনতে ও বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দিতেই পছন্দ করেন।

জন্মদিনের বিশেষ আয়োজন সম্পর্কে কিরণ জানান, ‌’জন্মদিনে বিশেষ কোনো আয়োজন নেই। কাজের শেষে বন্ধু-বান্ধবদের নিয়ে একটা কিছু হতে পারে।’  সূত্র : দ্য রিপোর্ট