বয়ফ্রেন্ডকে উৎসাহ দিতে এবার রাশিয়ায়

রাশিয়া এমনিতেই এখন ফুটবলপ্রেমীদের কাছে তীর্থক্ষেত্র। বিশ্বের সেরা ফুটবলার, সমর্থকরা হাজির রাশিয়ায়। ফুটবলারদের সঙ্গে এসেছেন তাঁদের বান্ধবীরাও।

তিনি বিকিনি সুন্দরী। সৌন্দর্যে বিশ্বের যে কোনও ব্যক্তিকে মিনিটেই কাত করে দিতে পারেন ইনি। নিজের রূপের বৈভবেই তাঁর সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে লাখো লাখো ফলোয়ার। এর বাইরে তাঁর পরিচয় তিনি পুষ্টিবিদ। তবে পেশা কিংবা রূপ নয়— থাইসা লিলের সবথেকে বড় পরিচয় তিনি পেরু অধিনায়ক পাওলো গুয়েরিরোর প্রেমিকা।

রাশিয়া এমনিতেই এখন ফুটবলপ্রেমীদের কাছে তীর্থক্ষেত্র। বিশ্বের সেরা ফুটবলার, সমর্থকরা হাজির রাশিয়ায়। ফুটবলারদের সঙ্গে এসেছেন তাঁদের বান্ধবীরাও। তবে এদের মধ্যেই আলাদা করে নজর কেড়ে নিয়েছেন থাইসা লিল। তাঁর স্বল্পবসনা ছবি সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে উত্তাপ ছড়িয়েছে। সেই উত্তাপের রেশ থেকে গিয়েছে ফুটবল ময়দানেও

তিনি ব্রাজিলীয়। অথচ তাঁর প্রেম পেরুর। দেশ ছাড়িয়ে তাঁর প্রেম গ্লোবাল! যাইহোক, লাতিন আমেরিকার পেরুর সম্ভবনা কতটা! তিনি থাইসার আশা তাঁর বয়ফ্রেন্ডের দল ভাল খেলবে। তিনি বলে দিচ্ছেন, ‘‘গুয়েরিরো এই বিশ্বকাপের তারকা। ঘূর্ণি ঝড়ের মতোই গুয়েরিরো কাঁপিয়ে দেবে প্রতিপক্ষ দলগুলোকে।’’

যাঁর প্রেমে তিনি মশগুল, সেই গুয়েরিরোর কাপ জয়ের স্বপ্ন কিন্তু শেষ হতে বসেছিল বিশ্বকাপের আগেই। চলতি বছরের মে মাসেই নিষিদ্ধ ড্রাগ সেবনের দায়ে ১৪ মাসের নির্বাসনে পাঠানো হয়েছিল পেরুর ক্যাপ্টেনকে। তবে পরে তাঁর সুইজারল্যান্ডের আদালত সাময়িকভাবে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ায় বিশ্বকাপে খেলার শিঁকে ছেড়ে তাঁর কাছে।

এরপরে যারপরনাই খুশি হন গুয়েরিরোর বান্ধবী থাইসা। ইনস্টাগ্রামেই তাঁর ফলোয়ার সংখ্যা ৪ লক্ষ ৭৫ হাজার। নিজের ফলোয়ারদের সামনে হৃদয় উজার করা এক পোস্ট দেন তিনি। সেখানে লেখেন, ‘‘দিনের পর দিন, মাসের পর মাস অনেক খারাপ সময়ের সাক্ষী থেকেছি। সেই মুহূর্তগুলো আমাদের শিক্ষা দিয়ে গিয়েছে।’’

এরপরে তিনি আরও লিখেছেন, ‘‘তুমি নিজেই জেনেছ, তুমি ভীষণই শক্তিশালী। নিজেকে যা ভাবতে তার থেকেও অনেক বেশি। তোমার জন্য আমি সবসময়ে প্রথম সারিতে থাকব যে তোমাকে ভরসা জোগাবে, উৎসাহ দেবে, কাঁদবে, হাসবে এবং প্রার্থনা করবে তোমার সাফল্যের জন্য। আমরা একটা যুদ্ধ জিতেছি। এবার এরপরেরও যুদ্ধটাও জিতব।’’

১৯৮২ সালের পর এই প্রথমবার বিশ্বকাপে অংশ নেবে পেরু। সেখানে ফ্ল্যামেঙ্গোয় খেলা ক্যাপ্টেনের পায়ে নতুন ইতিহাস গড়তে পারবে পেরু, সেটাই এখন দেখার।

Be the first to comment

Leave a comment

Your email address will not be published.


*