বেড়াতে যাবার প্রস্তুতি

বেড়াতে কে না ভালোবাসে? কর্মব্যস্ত নাগরিক জীবনের একঘেয়েমি দূর করতে ভ্রমণের কোন বিকল্প নেই। অবারিত সবুজের মাঝে একটুখানি প্রাণ ভরে নিশ্বাস নিতে মানুষ বের হয় তার চেনা গণ্ডি ছেড়ে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে বিভিন্ন ভ্রমণ গন্তব্যের আকর্ষণীয় সব ছবি দেখে দেখে সবাই এখন বেশ আগ্রহী ভ্রমণে। মাঝে মাঝে একটা দুটো দিন প্রকৃতির কাছাকাছি কাটিয়ে ক্লান্তি দূর করে প্রশান্ত মনে ফিরে আসেন। কিন্তু অপরিকল্পিত ভ্রমণে আপনি নানান ঝামেলার সম্মুখীন হতে পারেন যা আপনার ভ্রমণের আনন্দটাই নষ্ট করে দিতে পারে। তাই কোথাও যাবার আগে বেড়াতে যাবার প্রস্তুতি নেওয়া উচিত।

১। অনেক সময় আমরা কারো কাছে গল্প শুনে বা ছবি দেখে কোন কিছু না ভেবেই সেটা দেখাতে রওনা হয়ে যাই। ফিরে আসি খুব মেজাজ খারাপ করে কারণ যেমন শুনে ঘুরতে গিয়েছিলাম সেরকম কিছু পাইনি। কারো ঘোর বর্ষায় তোলা কোন ঝরনার ছবি দেখে, সেটা দেখতে আমি যদি গ্রীষ্মকালে যাই তাহলে আমাকে ফিরে আসতে হবে নিরাশ হয়ে। তাই যেখানে যাবার পরিকল্পনা করছেন সেখানে বছরের কোন সময় গেলে সবচেয়ে বেশি উপভোগ করতে পারবেন সেটা জেনে নিয়ে সেই ভাবে বেড়াতে যাবার প্রস্তুতি নিন। যে সময়ে যাচ্ছেন সে সময়কার উপযুক্ত পোশাক সাথে রাখুন।

২। যেখানে যাচ্ছেন সেখানকার ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতি, আচার ব্যবহার, রীতিনীতি সম্পর্কে একটু জেনে নিন। এই জানাটুকু নতুন একটা জায়গা উপভোগ করতে অনেক সাহায্য করবে আপনাকে।বিভিন্ন জায়গার বিভিন্ন রকম জনপদের সাথে মিশে যেতে হলে, তাদের বুঝতে হলে, জানতে হলে তাদের সম্পর্কে জানার কোন বিকল্প নেই।

৩। যেখানে যাচ্ছেন সেইখানে ভ্রমণকারীদের নিরাপত্তা কেমন সেটা জানা জরুরী। অনেক সময় দুই দেশের বর্ডারের কাছাকাছি জায়গা গুলো বেশ অশান্ত থাকে। আবার আচমকা কোন কারণে কোন জায়গায় অস্থিতিকর পরিবেশ সৃষ্টি হতে পারে। তাই বিশেষ করে শিশুদের সাথে নিয়ে কোথাও যাবার আগে ভালো ভাবে খোঁজ নিন নিরাপত্তার বিষয়ে।

৪। যেখানে যাচ্ছেন সেখানে থাকার ব্যবস্থা কেমন, থাকার জায়গা পর্যাপ্ত আছে কিনা, আগে থেকে হোটেল বুকিং দিতে হবে নাকি সেখানে গেলেও পাওয়া যাবে, নিরাপদ ভ্রমণের জন্য এই বিষয়গুলো নিশ্চিত হওয়া জরুরী। অনেক সময় অনেকের স্থানীয় খাবার খেতেও সমস্যা হয়। কাজেই জেনে যান আপনার পছন্দের খাবারটি কোথায় পাওয়া যাবে। খুব ক্ষুধার্ত হতে না চাইলে সাথে রাখতে পারেন কিছু শুকনো খাবার।

৫। বেড়াতে যাবার প্রস্তুতি হিসেবে খোঁজ নিন যেখানে যাচ্ছেন সেখানে যাতায়াত ব্যবস্থা কেমন? আগে থেকে ট্রেন বা বাসের টিকেট করতে হলে আগেই করে ফেলুন। একা গেলে ভালো হবে নাকি দলবেঁধে যাওয়া ভালো হবে সেটাও খোঁজ নিন। বিভিন্ন জায়গায় সহজে ঘুরার কিছু টিপস জেনে যান। মেয়েরা একা হলে একলা ভ্রমণের কিছু টিপস জানা থাকা ভালো। আবার নানান ধরণের টাউট বাটপার থেকে বাচার জন্যও সাবধানতা অবলম্বন করা উচিত।

৬। যেখানে ঘুরতে যাবেন বলে ঠিক করেছেন সেসব জায়গায় যাবার কোন ঝুঁকি আছে কিনা খোঁজ নিন। বেশি ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা শিশুদের না নিয়ে যাওয়াই ভালো।

৭। যেখানে যাচ্ছেন সেখানে মোবাইল নেটওয়ার্ক বা ইন্টারনেট সুবিধা আছে কিনা জেনে নিন। না থাকলে সেই অনুযায়ী পরিবারকে অবহিত করুন যাতে কেউ দুশ্চিন্তা না করে।প্রয়োজনীয় ফোন নাম্বার মুখস্থ না থাকলে একটা কাগজে লিখে সাথে নিন। আপনার স্মার্ট ফোনে প্রয়োজনীয় সব এপ্লিকেশন ইন্সটল বা আপডেট করা আছে কিনা দেখে নিন।

৮। আপনার গ্যাজেটগুলো চার্জ দেবার মত প্রয়োজনীয় বিদ্যুৎ পাওয়া যাবে কিনা, না পাওয়া গেলে সাথে যথেষ্ট পরিমাণ পাওয়ার ব্যাঙ্ক সাথে আছে কিনা দেখে নিন।

৯।বেড়াতে যাবার প্রস্তুতি হিসেবে নিজের সাথে নিজের প্রয়োজনীয় ওষুধগুলো এবং ফার্স্ট এইড কিট সাথে নিয়েছেন কিনা দেখে নিন।

হুটহাট, কোন রকম প্রস্তুতি না নিয়ে কোথাও যাওয়া উচিত নয়। একটি অপরিকল্পিত ভ্রমণ আপনাকে ফেলতে পারেন অনেক রকম সমস্যায়। ভ্রমণ আনন্দের জন্য। প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগের মাধ্যমে নিজের প্রাণে অসাধারণ অনুভূতি ও অভিজ্ঞতা সঞ্চয়ের সুযোগ পাওয়া যায় ভ্রমণের মাধ্যমে। ভ্রমণের মাধ্যমেই বৈচিত্রময় সংস্কৃতি, আচার আচরণ, উৎসবের সাথে পরিচয়ের সুযোগ হয় তাই ভ্রমণ হোক পরিকল্পিত।

পুনশ্চঃ ঘুরতে গিয়ে যেখানে সেখানে ময়লা আবর্জনা ফেলবেন না। অপচনশীল যেকোন আবর্জনা যেমন পলিব্যাগ, বিভিন্ন রকম প্লাস্টিক প্যাকেট, যে কোন প্লাস্টিক এবং ধাতব দ্রব্য ইত্যাদি নিজেদের সাথে নিয়ে এসে উপযুক্তভাবে ধ্বংস করুন। এই পৃথিবীটা আমাদের অতএব, এটাকে বাঁচিয়ে রাখার দায়িত্বও আমাদের।

Be the first to comment

Leave a comment

Your email address will not be published.


*