পাঞ্জাবকে হারিয়ে প্লে-অফের আশা জাগিয়ে রাখল কলকাতা

স্পোর্টস ডেস্ক : আইপিএলের বাঁচা-মরার ম্যাচে কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবকে ৭ উইকেটে হারিয়ে প্লে-অফে ওঠার আশা জাগিয়ে রাখল কলকাতা নাইট রাইডার্স। ১৩টি ম্যাচ খেলে কেকেআরের পয়েন্ট দাঁড়াল ১২। নেট রান রেটও বাড়ল নাইটদের। শুক্রবার হারায় বিদায় নিশ্চিত হয়ে গেল কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের।

নাইট রাইডার্সের জয়ের নায়ক শুভমান গিল। পাঞ্জাবের এই তরুণ ব্যাটসম্যানটি গত ম্যাচে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের বিরুদ্ধে ওপেন করতে নেমে বড় ইনিংস খেলেছিলেন। এদিনও দারুণ ব্যাট করে দলকে দুরন্ত জয় উপহার দিলেন শুভমান। ৩৯ বলে তিনি ৬৫ রানে অপরাজিত থাকেন। পাঁচটি বাউন্ডারি ও দু’টি ওভার বাউন্ডারিও রয়েছে তাঁর ইনিংসে। এই মরশুমে চারটি ইনিংসে ওপেন করে তিনটি হাফ-সেঞ্চুরি করলেন তিনি। ৯ বলে ২১ রানে অপরাজিত থাকেন ক্যাপ্টেন দীনেশ কার্তিক। দু’ওভার আগেই জয়ের কড়ি জোগাড় করে নেয় কেকেআর।

ওপেন করতে নেমে ক্রিস লিন ও শুভমান গিল যোগ করেন ৬২ রান। শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক মেজাজে ব্যাট করেন লিন। তাঁর ঝোড়ো ব্যাটিংয়ের সামনে দিশেহারা হয়ে পড়েছিল পাঞ্জাবের বোলাররা। মাত্র ২২ বলে ৪৬ রান করেন লিন। পাঁচটি চার ও তিনটি ছক্কাও হাঁকান তিনি। তবে আন্দ্রে রাসেলের ব্যাটে ঝড় দেখা যায়নি। রবীন উথাপ্পা ২২ রান করে আউট হন। রাসেলের সংগ্রহ ১৪ বলে ২৪ রান। চোদ্দ রানে তাঁর সহজ ক্যাচ ফেলেন মায়াঙ্ক আগরওয়াল। কিংস ইলেভেনের হয়ে মহম্মদ সামি তিন ওভারে মাত্র ১৫ রান দিয়ে নেন একটি উইকেট। যদিও তাঁর লড়াই বৃথা গেছে।

টসে জিতে প্রথমে ফিল্ডিং নেন কলকাতা নাইট রাইডার্সের অধিনায়ক দীনেশ কার্তিক। গত ম্যাচে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সকে হারানোর পর নাইটদের মনোবল অনেকটাই বেড়ে গিয়েছিল। তাই দল অপরিবর্তিত রেখেই মাঠে নেমেছিলেন ক্যাপ্টেন ডিকে। দারুণ ফর্মে থাকা কিংস ইলেভেনের ওপেনার লোকেশ রাহুল মাত্র ২ রানে সন্দীপ ওয়ারিয়রের বলে ক্রিস লিনের হাতে ধরা পড়েন। ক্রিস গেইল শুরুটা ভালো করেও ১৪ রানে আউট হয়ে যান। কিংস ইলেভেনের এই দুই সফল ও তারকা ব্যাটসম্যানের বিদায়ের পর কেকেআর নিঃসন্দেহে ম্যাচে জাঁকিয়ে বসার সুযোগ পেয়েছিল। কিন্তু নিকোলাস পুরান অসাধারণ ব্যাটিং করে নাইটদের পালটা চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দেন।

তৃতীয় উইকেটে মায়াঙ্ক আগরওয়ালকে সঙ্গে নিয়ে পুরান যোগ করেন ৬৯ রান। তিনটি বাউন্ডারি ও চারটি ওভার বাউন্ডারির সাহায্যে পুরান ২৭ বলে ৪৮ রান করে আউট হন। তবে তাঁর ঝোড়ো ব্যাটিংয়ের সুবাদে কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের রানের গতি অনেকটাই বেড়ে যায়। দারুণ ব্যাট করছিলেন মায়াঙ্ক আগরওয়ালও। হঠাৎ তিনি রান আউট হয়ে যাওয়ায় জোর ধাক্কা খায় পাঞ্জাব। ২৬ বলে দু’টি বাউন্ডারি ও একটি ওভার বাউন্ডারির সাহায্যে ৩৬ রান করে মাঠ ছাড়েন মায়াঙ্ক। ঝোড়ো ব্যাটিং করেন মনদীপ সিং ও স্যাম কুরান। তার মধ্যে আবার ১৭ রানে কুরানের সহজ ক্যাচ ফেলেন রিঙ্কু সিং। সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে মনদীপ ও কুরান যোগ করেন ৩৮ রান। মনদীপ ২৫ রানে আউট হন। ক্যাপ্টেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন (০) ব্যর্থ।

তবে কেকেআরের বোলারদের তুলোধনা করেন স্যাম কুরান। ২৩ বলে তিনি হাফ-সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন বাউন্ডারি হাঁকিয়ে। শেষ পর্যন্ত তিনি ২৪ বলে ৫৫ রানে অপরাজিত থাকেন। কেকেআরের সফল বোলার সন্দীপ ওয়ারিয়র।
তিনি দু’টি উইকেট পেয়েছেন। ভালো বল করেছেন সুনীল নারিন (৪/২৯)।