মেকআপ আর্টিস্ট তৈরি করছে স্টাইলিন হেয়ার অ্যান্ড বিউটি একাডেমি

সৌন্দর্য মানুষের একটি সম্পদ। প্রকৃতিগতভাবেই তা মানুষ পেয়ে আসছে। তবে সৌন্দর্যের যত্ন নেওয়াতে তা বহুগুণে বাড়ে কিংবা বিনষ্ট হওয়া থেকে রক্ষা পায়। হয়তো এমন ভাবনাতেই সময়ের হাত ধরে মেকআপ শিল্পের উদ্ভব। পরবর্তীতে মেকআপ নানা কাজে ব্যবহার হচ্ছে। বর্তমান আধুনিক সময়ে মেকআপ ছাড়া অনেক শিল্প উন্নতি লাভ করবে না। এভাবেই এটি নিজেই একটি শিল্প হয়ে উঠেছে। রূপচর্চার বিষয়টি আবহমান কাল ধরে সংস্কৃতির সঙ্গে মিশে থাকলেও সময়ের সঙ্গে সঙ্গে এর ধারণা বদলে যাচ্ছে। আর সে কারণেই এখন বিউটিশিয়ানদের চাহিদা তৈরি হয়েছে প্রায় সবখানেই। শহর কিংবা গ্রাম, সব জায়গাতেই এখন রয়েছে দক্ষ বিউটিশিয়ানদের চাহিদা। এ চাহিদার কথা ভেবেই এস.এম. শাহ ফারহানের উদ্যোগে যাত্রা শুরু হয় স্টাইলিন হেয়ার অ্যান্ড বিউটি একাডেমির।

বাংলাদেশে মেকআপ আর্টিস্ট তৈরি করছে স্টাইলিন হেয়ার অ্যান্ড বিউটি একাডেমি। বিদেশের বিখ্যাতদেরও দেশে নিয়ে এসে মেকআপ বিষয়ে শিক্ষার্থীদের জ্ঞান দিচ্ছে। তাদের সুযোগ্য প্রশিক্ষণে তৈরি করছে একেকজন প্রতিভা যারা স্বমহিমায় সারাবিশ্বে ছড়িয়ে আছেন। মেকআপ নিয়ে নিজেদের নিত্যনতুন ভাবনা ছড়িয়ে দিচ্ছেন চারপাশে। ইতোমধ্যে উত্তরায় একাডেমির নতুন শাখা উদ্বোধন করা হয়েছে। মেকআপ নিয়ে যাবতীয় কার্যক্রম গ্রহণ করেছে সংস্থাটি। এর মাঝে প্রশিক্ষণসহ সবই আছে।

দেশে প্রথম নেইল আর্ট এবং আইলেশ এক্সটেনশনের ক্লাসের আয়োজন করে হেয়ার অ্যান্ড বিউটি একাডেমি। এছাড়া তারা শিক্ষার্থীদের স্কলারশিপ দেয়। এমন নানা প্রশংসিত কাজের অংশীদার স্টাইলিন হেয়ার অ্যান্ড বিউটি একাডেমি।

ইতোমধ্যে স্টাইলিন হেয়ার অ্যান্ড বিউটি একাডেমি আয়োজিত দেশের প্রথম বিউটি ফে অ্যান্ড ব্রাইডাল কম্পিটিশন অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পারসোনার বিউটি পার্লারের চেয়ারম্যান কানিজ আলমাস খান। অনুষ্ঠানে মূল আকর্ষণ ছিলেন ভারতের মুম্বাই থেকে আগত বিশ্ববিখ্যাত মেকআপ আর্টিস্ট অনুরাগ আরিয়া ভারধান।

অনুষ্ঠানটির আয়োজক স্টাইলিন হেয়ার অ্যান্ড বিউটি একাডেমির স্বত্বাধিকারী এস. এম. শাহ ফারহান।

অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারী বিউটিশিয়ানরা বলেন, এটা বাংলাদেশি বিউটিশিয়ানদের জন্য অনেক বড় প্রাপ্তি। অনুরাগ আরিয়া ভারধানের কাছে থেকে অনেক কিছু শেখার আছে।

স্টাইলিন হেয়ার অ্যান্ড বিউটি একাডেমির স্বত্বাধিকারী এস. এম. শাহ ফারহান জানান, বিউটি ফেস্ট অ্যান্ড ব্রাইডাল কম্পিটিশন বাংলাদেশে প্রথম আমরা আয়োজন করি। এমন আয়োজন আগে হয়নি। আর বিশ্ব বিখ্যাত বিউটি আর্টিস্ট অনুরাগ আরিয়া ভারধান বাংলাদেশে প্রথম আসেন। এমন আয়োজন অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।

তিনি বলেন, আমরা চেষ্টা করি দেশের বিউটি আর্টিস্টদের দক্ষতা বৃদ্ধির জন্য কিছু শেখাতে। দেশের প্রায় সব জেলা থেকে অসংখ্য বিউটিশিয়ান আমাদের প্রোগ্রামে অংশগ্রহণ করেন।

অন্যদিকে মেকআপ আর্টিস্ট জগৎকে আরো প্রসারিত করতে স্টাইলিন হেয়ার অ্যান্ড বিউটি আয়োজন করেছে মেকাপ অ্যান্ড বিউটি অ্যাওয়ার্ড-২০১৯।

এর আগে, ২০১৮ সালের ৫ নভেম্বর স্টাইলিন হেয়ার অ্যান্ড বিউটি একাডেমির ইভেন্টের যাত্রা শুরু। ওয়ার্ল্ড ফেমাস মেকাপ আর্টিস্ট অনুরাগ আরিয়া ভারধানকে প্রথমবার বাংলাদেশে আনতে সক্ষম হয় এই একাডেমি। এই একাডেমির সঙ্গে যুক্ত হন নতুন সদস্য শুভ্রা সেন, যিনি কলকাতা ইভেন্টের জন্য অনেক শ্রম দিয়েছেন।

দ্বিতীয়বারের মতো ২০১৯ সালের মার্চে তিনদিন মাস্টার মেকাপ ক্লাশ করে আবারো সুনাম অর্জন করে এই একাডেমি এবং ২০১৯-এর জুলাই এ প্রথমবারের মতো মিসেস ইন্ডিয়া পায়েল সিংকে এনে নেইল আর্ট এবং আইলেশ এক্সটেনশন ক্লাশের আয়োজন করে আরো একটি তাক লাগানো দৃষ্টান্ত স্থাপন করে স্টাইলিন হেয়ার অ্যান্ড বিউটি একাডেমি।

প্রথম বিউটি ফে অ্যান্ড ব্রাইডাল কম্পিটিশন অনুষ্ঠানে পারসোনার বিউটি পার্লারের চেয়ারম্যান কানিজ আলমাস খান, ভারতের মুম্বাই থেকে আগত বিশ্ববিখ্যাত মেকআপ আর্টিস্ট অনুরাগ আরিয়া ভারধান
প্রথম বিউটি ফে অ্যান্ড ব্রাইডাল কম্পিটিশন অনুষ্ঠানে পারসোনার বিউটি পার্লারের চেয়ারম্যান কানিজ আলমাস খান, ভারতের মুম্বাই থেকে আগত বিশ্ববিখ্যাত মেকআপ আর্টিস্ট অনুরাগ আরিয়া ভারধান

একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা এস এম শাহ ফারহান বিশাল স্বপ্ন নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন তার প্রধান সহযোদ্ধাদের নিয়ে। প্রথমেই যার কথা না বললে নয় তিনি আকলিমা আক্তার শান্তা। একজন সফল নারী উদ্যোক্তা। সবগুলো ইভেন্টে তার দায়িত্ব সফলভাবে পালন করে, স্টাইলিন হেয়ার অ্যান্ড বিউটি একাডেমিকে এগিয়ে নিতে অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন তিনি। তাকে সহযোগিতা করে যাচ্ছেন আরো একজন নারী উদ্যেক্তা ময়না আক্তার। সবচেয়ে বড় সহোযোগিতা করে যাচ্ছেন স্টাইলিন হেয়ার অ্যান্ড বিউটি একাডেমির এস এম শাহ ফারহানের সহধর্মিণী রোকসানা মিমি।

দূরদর্শিতার মতো দিকনির্দেশনা দিয়ে একাডেমিকে সফল একাডেমি গড়ে তোলার জন্য আরো একজনের প্রচেষ্ঠা উল্লেখযোগ্য। তিনি মুরাদ হোসাইন। এমনিভাবে সবার প্রচেষ্টায় এগিয়ে যাচ্ছে স্টাইলিন হেয়ার অ্যান্ড বিউটি একাডেমি।

স্টাইলিন হেয়ার অ্যান্ড বিউটি একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা এস এম শাহ ফারহান বলেন, বাংলাদেশে বিউটি পার্লারের কাজকে মানুষ এক সময় ভালোভাবে নিতে পারত না। কিন্তু এইটা যে একটা আর্ট সেটা তখন মানুষ জানতো না। মানুষের মাঝে এইটা বুজাতে সক্ষম হয়েছি যে একজন মেকআপ আটিস্ট একটা সম্মানের যায়গা। আন্তর্জাতিক মহলে বাংলাদেশের মেকাপ আটিস্টদের প্রতিযোগিতাতে এগিয়ে রাখতে এবং ভালো মানের মেকাপের জন্য আমরা আগেও বিভিন্ন ধরনের ট্রেনিং করিয়েছি, ভবিষ্যতেও করাব।

স্টাইলিন হেয়ার এন্ড বিউটি একাডেমির বিজনেস ডেভেলপমেন্ট অফিসার ও নারী উদ্যক্তা আকলিমা আক্তার শান্তা বলেন, আমরা চাই আরো ভালো কাজ করে মেকাপ জগৎকে দেশ এবং দেশের বাইরে পরিচিত করাব।

স্টাইলিন হেয়ার অ্যান্ড বিউটি একাডেমিতে শেখানো হয়, ১. ট্রাডিশনাল ব্রাইডাল মেকাপ, ২. ট্রাডিশনাল ব্রাইডাল হেয়ার স্টাইল, ৩. ওয়েস্টার্ন ব্রাইডাল মেকাপ, ৪. ওয়েস্টার্ন ব্রাইডাল হেয়ার স্টাইল, ৫. ব্রাইডাল/আর্টিস্টিক মেহেদী ডিজাইন, ৬. কমার্শিয়াল নেইল আর্ট, ৭. লেডিস ট্রেনড হেয়ার কাট, ৮. জেনটস ট্রেন্ড হেয়ার কাট, ৯. ফেনটাকি ও ১০. ডামি হেয়ার স্টাইল।

Be the first to comment

Leave a comment

Your email address will not be published.


*