মশলা আসল না নকল, চিনবেন যেভাবে

বাঙালি রান্নায় মশলা ব্যবহার করা হয় খুব বেশি। এতে রান্নার স্বাদ বাড়ে দ্বিগুণ। একেক মশলায় স্বাদের হেরফের করে অনেকটা। মশলা শুধু রান্নার স্বাদ বাড়িয়ে দেয় না, তার অনেক ঔষধি গুণও রয়েছে। সঠিক মশলা সঠিকভাবে ব্যবহার করলে তার অনেক উপকার পাওয়া যায়।

তবে বাজার থেকে কিনে আনা মশলা কতটা খাঁটি, সে ব্যাপারে প্রশ্ন থেকেই যায়। নকলের ভিড়ে আসল মশলা চেনার কিছু উপায় আছে। উপায়গুলো জেনে রাখুন। তাহলে সহজেই বের করতে পারবেন মশলা আসল নাকি নকল।

হলুদ

বাঙালি রান্নায় যে মশলাটি সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয়, সেটা হলুদ। হলুদ আসল নাকি নকল তা বোঝার উপায় আছে। এক গ্লাস পানিতে কিছুটা হলুদ মিশিয়ে নিন। যদি সেটা পানির সঙ্গে মিশে যায় আর রং পালটে যায় তাহলে তা অবশ্যই আসল। আর যদি উপরে কিছু আর তলানিতে কিছুটা গিয়ে জমে থাকে। তাহলে সেটা নকল।

গুঁড়া মরিচ

লাল মরিচের গুঁড়া রান্নার স্বাদ বাড়াতে অন্যতম এক উপাদান। হলুদের মতো একই পদ্ধতিতে মরিচের গুঁড়ার আসল নকল বের করতে পারবেন। কেননা মরিচ গুঁড়াতেই সবচেয়ে বেশি ভেজালের প্রমাণ পাওয়া গেছে।

দারুচিনি

মাংস রান্না করুন কিংবা মিষ্টান্ন। দারুচিনি ছাড়া স্বাদ বাড়ানো অসম্ভব। তবে বাজার থেকে দারুচিনি কেনার আগে ভাল করে তার গন্ধ বুঝে নিন। অনেক সময় দারুচিনির বদলে কাসিয়া বা চিনা দারুচিনি বিক্রি করা হয়। চিনা দারুচিনি ওজনে হালকা হয়। এর ঘনত্বও কম থাকে। আর গন্ধও আসল দারুচিনি থেকে হালকা থাকে। আসল দারুচিনির গন্ধ খুবই কড়া হয়।

গোলমরিচ

রান্নায় স্বাদ বাড়ানোর পাশাপাশি সর্দি-কাশি সারাতেও বেশ কার্যকরী গোলমরিচ। জানেন কি? বাজারে অনেক সময় গোলমরিচের সঙ্গে পেপের বীজ মিশিয়ে দেয়া হয়! গোলমরিচ কেনার ক্ষেত্রে একটু টিপে দেখে নেবেন। যদি মরিচ একটু তৈলাক্ত হয় তাহলে তা আসল। যদি না হয় তাহলে অবশ্যই তা নকল।

স্টার আনিস

বিরিয়ানি রান্নার অন্যতম অঙ্গ ফুলের মতো দেখতে এই মশলা। এটি কেনার ক্ষেত্রে দেখে নেবেন মোট আটটি অক্ষ আছে কি না। আর খুব বেশি কালচে রঙের হলে স্টার আনিস নেবেন না। কেননা সেটা পুরনো হতে পারে। একটু ব্রাউন আর চকচক করছে এমন স্টার আনিস কিনুন।