আগামী দশ বছরে আড়াই কোটি মানুষের মৃত্যুর কারণ হবে হার্ট অ্যাটাক

সারাবিশ্বে আজ পালিত হচ্ছে বিশ্ব হার্ট দিবস। ওয়ার্ল্ড হার্ট ডে পালন করা হয় মূলত সচেতনতা বৃদ্ধি করতে। অনেকেই মনে করেন হার্ট দিবস আবার কি জন্য দরকার। বিশেষজ্ঞদের মতে, প্রচার করে এ রকম কোনো দিবস পালন করে সাধারণ মানুষকে সচেতন করা সম্ভব।

মহামারি আবহাওয়ায় কয়েকমাস ধরেই অন্যান্য অসুখ হেলাফেলা করছেন। এতে করে আচমকা হার্ট অ্যাটাকে মৃত্যুর ঘটনা বাড়ছে। এছাড়াও দুশ্চিন্তা আর অস্থিরতা এর অন্যতম কারণগুলোর একটি। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিশেষজ্ঞরা এক সমীক্ষা চালান। সেখানে তারা দেখেন, ২০৩০ সালে বছরে প্রায় আড়াই কোটি মানুষ হার্ট অ্যাটাকে আক্রান্ত হয়ে অকালে মৃত্যু হতে পারে।

ল্যান্সেট জার্নালে প্রকাশিত গবেষণাপত্রে জানা গিয়েছে, ২০১৬ সালে আমাদের দেশে ২১ লক্ষ মানুষ হার্ট অ্যাটাকে প্রাণ হারিয়েছে। অথচ হার্টের অসুখ নিরাময়ের যাবতীয় চিকিৎসা এখন বিজ্ঞানীদের হাতের মুঠোয়। তবে তার জন্য আপনাকে সঠিক সময়ে চিকিৎসকদের কাছে পৌঁছতে হবে।

বিভিন্ন কারণে হার্টের রোগের প্রবণতা বাড়ছে। এর অন্যতম কারণ অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস, অতিরিক্ত ওজন, দুশ্চিন্তা। তবে জীবনযাত্রার কারণে হার্টের অসুখ কার্ডিয়োভাসকিউলার ডিজিজে ভুগছে বিশ্বের নানা দেশের মানুষ। মানুষকে এই বিষয়ে সচেতন করতেই ‘ওয়ার্ল্ড হার্ট ফেডারেশন’ ও ‘ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন’-এর যৌথ উদ্যোগে ১৯৯৯ সালে ‘ওয়ার্ল্ড হার্ট ডে’ পালনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।