উই সামিটে দেশীয় পণ্যেরও একটি বড় প্রচারণা হবে : নাসিমা আক্তার নিশা

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে দেশীয় নারী উদ্যোক্তাদের সবচেয়ে বড় প্লাটফর্ম উইমেন অ্যান্ড ই-কমার্স ফোরাম (উই) আয়োজন করেছে দুদিনব্যাপী এন্টারপ্রেনিউরশিপ সামিট। আগামী ২৪ ও ২৫ অক্টোবর ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে অনুষ্ঠেয় এ সামিটে উদ্যোক্তাদের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করবেন দেশ-বিদেশের বিশেষজ্ঞরা।

সামিট নিয়ে বিভিন্ন পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন ফেসবুক ভিত্তিক সংগঠনটির প্রেসিডেন্ট নাসিমা আক্তার নিশা। তিনি বণিক বার্তাকে বলেন, আমরা দীর্ঘদিন ধরেই দেশীয় নারী উদ্যোক্তাদের দক্ষতা বৃদ্ধিতে বিভিন্নরকম কর্মশালা, প্রশিক্ষণের আয়োজন করে আসছি। একই সাথে উদ্যোক্তাদের সঙ্গে সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন প্লাটফর্মে যোগসূত্র স্থাপন করে দিতে কাজ করে যাচ্ছি। সেই ধারাবাহিকতায় এবার সামিটের আয়োজন করতে যাচ্ছি। সেখানে উদ্যোক্তাদের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলবেন দেশ-বিদেশের বিশিষ্টজনরা। এই সামিটের মাধ্যমে দেশীয় পণ্যেরও একটি বড় প্রচারণা হবে বলে প্রত্যাশা তার।

তিনি জানান, আগামী ২৪ অক্টোবর উদ্বোধনী সেশনে প্রধান অতিথি হিসেবে যুক্ত থাকবেন জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমীন চৌধুরী। অনুষ্ঠানটির সভাপতিত্ব করবেন তথ্য ও প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে আরো থাকবেন এসবি টেক ভেঞ্চারসের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী সোনিয়া বশির কবির, বাংলাদেশে ভারতীয় নবনিযুক্ত রাষ্ট্রদূত বিক্রম কে দোরাইস্বামী, যুক্তরাজ্যে নিযুক্ত বাংলাদেশী রাষ্ট্রদূত সৈয়দা মুনিয়া তাসনীম।

উদ্বোধনী দিনে বাংলাদেশের নারীদের সামগ্রিক অবস্থা ও ই-কমার্স সেক্টর নিয়ে আলোচনা করবেন ই-ক্যাব এর প্রতিষ্ঠাকালীন সভাপতি এবং সার্চ ইংলিশ এর প্রতিষ্ঠাতা রাজিব আহমেদ। এরপর দেশীয় পণ্য নিয়ে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন চারজন বক্তা দেশীয় পণ্যের ব্রান্ডিং এবং এ শিল্পের সামগ্রিক অবস্থা বর্ণনা করবেন। কথা হবে দেশীয় পণ্যের সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্ট নিয়েও। নারী উদ্যোক্তাদের ই-কমার্সের লিগ্যাল ইস্যুগুলো নিয়েও থাকছে সেশন। এছাড়াও ই-কমার্স ও উইমেন এম্পাওয়ারমেন্ট নিয়ে রাতের সেশনে যুক্ত হবেন ই-ক্যাবের বর্তমান প্রেসিডেন্ট শমী কায়সার ও সংসদ সদস্য মেহের আফরোজ চুমকি।

দ্বিতীয় দিনের সেশনে পণ্যের ডেলিভারি, ডিজিটাল পেমেন্ট, পলিসি সাপোর্ট, ব্যাংকিং ইস্যুতে নানাধরনের গুরুত্বপূর্ণ সেশন থাকবে বলে জানান নিশা। তিনি বলেন, সমাপনী সেশনে প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক আরো একবার যুক্ত হবেন। আমরা ১০ জন নারী উদ্যোক্তাকে সম্মাননা জানাবো; যারা ‘উই’-এর মাধ্যমে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে কাজ করে যাচ্ছেন।

এদেশের গ্রামীণ জনপদের নারীরা ‘সৃষ্টিশীল পণ্য তৈরিতে অসাধারণ দক্ষ’ উল্লেখ করে নিশা বলেন, যুগের সাথে তাল মিলিয়ে তথ্য-প্রযুক্তি সম্পর্কে দক্ষতা অর্জন না করায় এই নারীরা এখনো সমাজে অবহেলিত। এসব নারীদের দক্ষতা উন্নয়নে উই-এর প্রতিষ্ঠা। এই প্রচেষ্টা বেশ কার্যকরও বলে দাবি এই নারী সংগঠকের। তিনি বলেন, আমাদের উদ্দেশ্য ছিল নারীরা আধুনিক এবং সনাতনী ব্যবসা বিষয়ে সাধারণ জ্ঞান শিখে নিজেদের গড়ে তুলবে। এক্ষেত্রে আমরা সফল, কারণ গত ৫ মাসে শত শত নারী যাদের গড় আয় ছিল ৫-৬ হাজার, উই এর মাধ্যমে বর্তমানে আয় ৮০ থেকে ১ লাখ টাকা। উই এখন নগরের আর গ্রামীণ জনপদের সকল নারী উদ্যোক্তার প্রিয় জায়গা। এর প্রমাণ হল আমাদের ফেসবুক গ্রুপ, এটি ২৪ ঘণ্টাই কার্যকর থাকে।

সামিটে উই-এর সহ-আয়োজক প্রতিষ্ঠান ‘বাংলাদেশ ইনোভেশন ফোরাম’। এর প্রতিষ্ঠাতা আরিফুল হাসান অপু বলেন, আমরা খেয়াল করেছি- উদ্যোক্তারা মুখিয়ে আছেন আয়োজনটির জন্য। কারণ এই আয়োজনটিতে এমন কিছু বিষয় আমরা তুলে আনার চেষ্টা করবো -যেগুলো উদ্যোক্তাদের অনেকদিনের সমস্যা। এই নতুন উদ্যোক্তাদের ইন্ড্রাস্টির গুণীজনদের সাথেও পরিচিত হওয়ার সুযোগ এটা।