শুভ জন্মদিন কথাশিল্পী ফারজানা মিতু

তারুণ্যলোক ডেস্ক: তরুণ কথাশিল্পী ফারজানা মিতুর জন্মদিন ১১ ডিসেম্বর।  তারুণ্যলোকের পক্ষ থেকে এই লেখককে ফুলেল শুভেচ্ছা।

সদা হাস্যজ্জল একজন প্রতিভাবান লেখক মিতু। বাবার মায়ের খুব আদরে কেটেছে ছোটবেলা। প্রচন্ড কল্পনা বিলাসী, স্বপ্নের বিশাল জগতে অবাধ বিচরণ তাঁর। একে একে ঘুরে বেড়িয়েছেন পৃথিবীর ৩৫ টি দেশ। নানান দেশের নানান মানুষের সাথে মিশে তাঁর অভিজ্ঞটা রীতিমতো ঈষনীয় কিন্তু ঈর্ষা করেন না কাঊকে।

অদ্ভুত একটা ঘটনা ঘটান তিনি কবিতা লেখার সময়। শেষের লাইনটা সবার আগে লিখে শুরু করেন কবিতা। অথবা বলতে হয় তিনি আগেই কবিতার নিয়তি ঠিক করে রাখেন। টুকটাক লেখালেখি করেছেন স্কুল জীবন থেকেই । খুব অল্প কিছু মানুষ আছেন যারা সাফল্যের সাথে হাঁটেন হাত ধরে পরস্পর।ফারজানা মিতু তেমন একজন মানুষ যিনি প্রথম কবিতার বইটিতেই হৈচৈ ফেলে দেন।

লেখালেখি তার ভাবাবেগ। কবিতার প্রেমে ডুবে থাকা এই মানুষটা একটা সময় উৎসাহী হয়ে ওঠেন উপন্যাস লেখার প্রতি। কবিতা, গল্প, উপন্যাস ও কলাম লিখে চলেছেন, নিরলস। এ পর্যন্ত ৩টি কবিতা ও ১১টি উপন্যাস গ্রন্থ বেরিয়েছে।

তার উল্লেখযোখ্য বই- নিশীথ রাতের বাদলধারা,  তোমার লাগি আছি জেগে, কে জানে কাহার তরে, তোমাতে করিবো বাস , কেটেছে একেলা বিরহের বেলা, আমার অদৃষ্টে তুমি, যে আঁধারে তুমি নেই।

তিনি বিশ্বাস করেন ১৬ কোটি মানুষের এই দেশে তিনি ১৬ হাজার পাঠক অন্তত তৈরী করতে পারবেন।

মূলত রোমান্টিক ধারার একটা ভিন্ন মাত্রা দেবার চেষ্টা ফারজানা মিতুর একান্ত আগ্রহের বিষয়।

আগামী বইমেলার জন্যে প্রস্তুতি নিচ্ছেন খুব জোরেসোরেই। অবসর নেই তাঁর, ক্লান্তি নেই লেখালেখিতে। মনের আনন্দে লিখে চলেছেন নতুন নতুন উপন্যাস। লেখার প্রতি ভালবাসা তাঁকে আন্দোলিত করে, আন্দোলিত করে। সব বয়সের পাঠকের কথা মাথায় রেখেই লিখেন তিনি।

সমালোচিত হয়েছেন “আমারে না হয় না জানো” লিখে। প্রকাশিত হওয়া সর্ব শেষ উপন্যাস এটি। জীবনের শেষদিন পযন্ত লিখতে চান পাঠকের জন্য। সবার শুভ কামনা করেন। দেশকে ভালোবাসেন। নইলে পৃথিবীর যে কোন দেশেই তিনি স্থায়ী হয়ে যেতে পারতেন। তিনি ফিরে এসেছেন বার বার দেশের টানে, নাড়ীর টানে। সেবামূলক কাজেও তার উৎসাহের শেষ নেই।

গত বছর ফারজানা মিতুকে রাস্তায় দাঁড়িয়ে ক্যান্সার সচেতনার জন্য লিফলেট বিতরণ করতে দেখা গেছে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজের সামনে। এ বছরও অক্টোবর মাস ব্যাপী স্তনক্যান্সার সচেনতা মুলক সব কর্মকাণ্ডে তাকে দেখা গেছে আর আগামী জানুয়ারি মাসে জরায়ু ক্যান্সার নিয়েও ব্যাস্ত সময় কাটাবেন।