এটা গল্প কার, দেখো লিখছে কে….

কি অদ্ভুত, না? যে সম্পর্কে বাঁচেন আপনি, যার জন্য হাজারো ব্যস্ততার মাঝেও সময় বের করতে একটুও ক্লান্তি আসেনা, যে মানুষটার জন্য যে কোনও রকমের কম্প্রোমাইজ করতে একটুও পিছপা হবেন না, অনেক সময় কি মনে হয় সেই সম্পর্কটার অস্তিত্ব আদৌ ওই তরফে নেই? যে টান আপনি অনুভব করছেন, সেই টান আপনার সঙ্গী বুঝতেই পারছেন না? এড়িয়ে যাচ্ছেন কখনও আবার প্রত্যুত্তর দিলেও, তাতে নেই সেই উষ্ণতা?
সবকটা প্রশ্নের উত্তরই যদি হ্যাঁ হয়, তবে সেই সম্পর্ক নিয়ে ভাবুন দ্বিতীয়বার৷ ভাবুন আপনার সঙ্গীকে নিয়েও৷ এক কথায়আপনার ভালোবাসা এক তরফা কিনা, তা কিছু বিশেষ লক্ষণেই বোঝা সম্ভব। এমনটাইদাবি করছে একটি ইংরাজি জার্নাল।
লক্ষণগুলি জেনে নিয়ে সচেতন হোন:
১. আপনিই কি সবসময়ে ঘুরতে যাওয়া বা ‘উইকেন্ড আউটিং’-এর প্ল্যান করেন? আপনার সঙ্গী কি একবারও এরকম কোনও প্রস্তাব আপনাকে দেননি?
২. আপনার সঙ্গীর যদি আপনাকে প্রয়োজন হয়, তাহলে আপনি যে পরিস্থিতিতেই থাকুন না কেন, তাঁর কাছে পৌঁছে যাওয়ার বা তাঁর কাজ করে দেওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু বিপরীত দিক থেকে কি আপনার সঙ্গীও সেটা করেন আপনার জন্য?আপনার দরকারে কি সবসময়েতাঁকে কাছে পান?
৩. আপনি রোজ নিজে থেকে কথা না বললে কি উনি ফোন কিংবা টেক্সট করার উৎসাহ দেখান না?হয়তো সেটা একদিন, দুদিন কিংবা দিনের পর দিন!
৪. আপনি কি সঙ্গীর জীবনের অংশ হিসাবে নিজেকে অনুভব করতে পেরেছেন? আপনার সঙ্গীও কি তাই মনে করেন?
৫. একসঙ্গে সময় কাটানোর কথা বললেই কি আপনার সঙ্গী কাজের অজুহাত দেখান?আপনাকে এড়িয়ে যান না তো?
৬. যতই সঙ্গীকে খুশি করার জন্য আপনি চেষ্টা করুন না কেন, কোনওভাবেই সফল হননা কি?
৭. আপনার পরিবার, আপনার বন্ধু বান্ধবের সঙ্গে দেখা করতে হলেই কি কোনওভাবে আপনার সঙ্গী এড়িয়ে যান?
৮. ‘সরি’ এই ছোট্ট শব্দটির সম্পর্কের ক্ষেত্রে মাহাত্ম্য অনেক বেশি। অনেক মান অভিমানের অবসান ঘটায় এই শব্দটাই। আপনার ক্ষেত্রে কি এই শব্দের প্রয়োগ কেবল এক তরফা হয়ে গিয়েছে? ‘সরি’কি শুধু আপনিই বলেন?
৯. আপনি কি সব সময়ই নিজে থেকেই ওঁর যে কোনও কাজের যুক্তি খুঁজে নেন? সব কিছুর জন্য নিজেকেই দোষারোপ করেন?
হয়তো ওপরের সবকটি বা বেশিরভাগ প্রশ্নের উত্তরই হ্যাঁ৷ তাই না? তাহলে সেই এক তরফা সম্পর্কে বেঁচে রয়েছেন আপনি৷ সম্পর্কে উষ্ণতা না থাকলে, আদৌ কি সেই সম্পর্ক জীবিত বলে মনে করেন আপনি? ভেবে দেখুন তো?

Be the first to comment

Leave a comment

Your email address will not be published.


*